ঢাকা, মঙ্গলবার, ১১ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ২৮শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

৪ শতাংশ হারে প্রণোদনার ঋণ চান বাংলাদেশ মোবাইল ফোন রিচার্জ ব্যবসায়ী এসোসিয়েশন

গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে বাংলাদেশ মোবাইল ফোন রিচার্জ ব্যবসায়ী এসোসিয়েশনের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলু বলেন – করোনা মহামারীতে দেশের ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পকে উজ্জীবিত করতে এবার বেসরকারী সংস্থা ( এনজিও) -এর মাধ্যমে প্রণোদনার ঋণ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। প্রণোদনা প্যাকেজটি কার্যকর করার জন্য একটি খসড়া নীতিমালা ও করেছে আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ। প্রস্তাবিত নীতিমালা অনুযায়ী জাতীয় পরিচয়পত্র, পাসপোর্ট বা ট্রেড লাইসেন্স দিয়েই প্রণোদনার এই ঋণ পাবেন ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের সিএমএসএমই) উদ্যোক্তারা। এ জন্য পৃথক কোনো জামানত বা ডকুমেন্টের প্রয়োজন হবে না। শুধু দুজন গ্যারান্টার হলেই এনজিও থেকে প্রণোদনার ঋণ নেওয়া যাবে। এর আগে ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের জন্য প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত প্রণোদনা প্যাকেজের ঋণের সুদের হার গ্রাহক পর্যায়ে ৪ শতাংশ ছিল । ছোট উদ্যোক্তাদের জন্য ৪ শতাংশই যথেষ্ট। ছোট উদ্যোক্তাদের ঋণ বিতরণ বাড়াতে সরকারের এই উদ্যেগ প্রংশনীয় । প্রান্তিক পর্যায়ের উদ্যোক্তাদের হাতে প্রণোদনার ঋণ দ্রুত পৌঁছায় দিতে অতিরিক্ত সুদের হার কমাতে হবে । গত এপ্রিলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত প্রণোদনা প্যাকেজ থেকে সিএমএসএমই খাতের জন্য ২০ হাজার কোটি টাকার ঋণ বরাদ্দ দেওয়া হলেও এই খাতে বিতরণের হার হতাশাজনক। স্থায়ী জামানত না থাকায় ব্যাংকগুলো ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের ঋণ দিতে আগ্রহ দেখায়নি। এ অবস্থায় প্রান্তিক পর্যায়ের ক্ষুদ্র উদ্যোক্তারা যাতে ঝামেলা ছাড়াই ঋণ পায় সেজন্য নতুন একটি প্রণোদনা প্যাকেজ এনজিওগুলোর মাধ্যমে কার্যকর করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে।