ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৯শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

লন্ডনে বাংলাদেশি কারি শিল্পের ১৬তম অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠিত

ব্রিটেনে বাংলাদেশি কারি শিল্পের বৃহত্তম সংগঠন বাংলাদেশ ক্যাটারার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিসিএ) ১৬তম অ্যাওয়ার্ডস প্রদান অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার (৩০ অক্টোবর) লন্ডনের পার্ক প্লাজায় এ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

এবছর টেকওয়ে ও রেস্টুরেন্ট থেকে নির্বাচিত ১০ দশটি ‘বেস্ট কারি হাউস’, সেরা দশ জন ‘শেফ অফ দ্য ইয়ার’, ৩টি ‘কমিউনিটি ওনার’, একটি ‘নিউ কামার’ ও একটি ইউরোপিয়ান রেস্টুরেন্টকে এ অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হয়।

কারি শিল্প নিয়ে বিসিএ’র ধারাবাহিক কাজের প্রেরণা ও সাফল্যগুলোকে ক্যাটারার্স ও কারি প্রেমীদের আরও কাছে নেওয়ারি উদেশ্য এবারের অ্যাওয়ার্ডের পরিকল্পনা করা হয়েছে ‘সেলিব্রেটিং সাকসেস অ্যান্ড ইন্সপায়ারিং আদারার্স’ স্লোগান নির্ধারণ করা হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন যুক্তরাজ্যের সংসদ সদস্য ও সেক্রেটারি অব স্টেইট ফর ডিজিটাল, কালচার, মিডিয়া অ্যান্ড স্পোর্টস মিশেল ডোনেলান। তিনি বৈশ্বিক অর্থনৈতিক সংকট মোকাবিলায় সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে বলেন- বাংলাদেশি কারি শিল্পের চিহ্নিত সমস্যাগুলো আমি সরকারের সংশ্লিষ্টদের সামনে গুরুত্ব দিয়ে তুলে ধরার চেষ্টা করবো।

যুক্তরাজ্যে চলমান গ্যাস ও বিদ্যুৎ সংকটের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, এই সময়ে নতুন কোনো প্রতিশ্রুতি দেওয়া সম্ভব না হলেও সরকার কারি ইন্ডাস্ট্রির সমস্যা ও দাবির বিষয়ে অবগত আছে। ব্রিটেনের অর্থনীতিতে অব্যাহত অবদান রাখায় কারি শিল্পের সংকট মোকাবিলার জন্য সরকার অত্যন্ত আন্তরিক বলে মনে করেন ।

নিজেকে একজন বাংলাদেশি কারিপ্রেমী হিসেবে তুলে ধরে মিশেল ডোনেলান বলেন, আমি বিশ্বাস করি এখানে আমার মতো উপস্থিত সকলেও নানা পদের কারি পছন্দ করেন এবং যা এদেশের খাবার সংস্কৃতি বিকাশেও অত্যন্ত গুরুত্ব বহন করে চলেছেন।

অনুষ্ঠানে বিশেষ হিসেবে আরো উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাজ্যের সংসদ সদস্য ও শেডো সেক্রেটারি অব স্টেইট ফর জাস্টিজ স্টিভ রীড ওবিই, স্যার স্টিপেন টিমস, স্যার গ্যারী স্ট্রিটার, পল স্কলি, রোশনারা আলী, রোড ক্যাডবারী, নীয়া গ্রেফথ প্রমুখ।

বিশেষ অতিথির শেডো সেক্রেটারি অব স্টেইট ফর জাস্টিজ স্টিভ রীড ওবিই কারি ইন্ড্রাস্ট্রির অব্যাহত স্টাফ সংকট মোকাবিলায় বাংলাদেশ থেকে স্টাফ আনার দাবির প্রতি সমর্থন জানান ।

স্টিভ রীড ওবিই ইন্ডাস্ট্রির সংকট সময়ে তাদের পাশে থাকার প্রতিশ্রুতি জানিয়ে বলেন, লেবার পার্টির সদস্য হিসেবে আমি কারি শিল্পের সমস্যা সমাধানে কাজ করব। ইন্ডাস্ট্রিকে টিকিয়ে রাখতে সবার সহযোগিতা দরকার।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন অ্যাওয়ার্ড কমিটির আহ্বায়ক মুজিবুর রহমান ঝুনু। সংগঠনের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন বিসিএর প্রেসিডেন্ট এম এ মুনিম ওবিই, সেক্রেটারি জেনারেল মিটু চৌধুরী ও চিফ ট্রেজারার সাইদুর রহমান বিপুল প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, ব্রিটেনের চলমান ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের কারণে বাংলাদেশি রেস্টুরেন্ট ও টেকওয়ে ব্যবসায়ীরা মারাত্মক সংকট সময় পার করছেন। ১৬তম বিসিএ অ্যাওয়ার্ডস চলমান বিপর্যয়ে গোটা শিল্পে একটি ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে।

তারা আরও বলেন, কারি প্রেমীদের প্রিয় ও ঐতিহ্যবাহী ডিশ টিক্কামাসালা খ্যাত ব্রিটেনের রেস্টুরেন্ট ও টেকওয়ে দিন দিন হারিয়ে যাওয়ার আশঙ্কায় রয়েছে। এই সংকট সময়ে এর কর্মী সংকট মোকাবিলায় ব্রিটেনের ইমিগ্রেশন নীতি আরও সহজ করা খুব জরুরি।

বিসিএ সভাপতি এমএ মুনিম ওবিই বলেন, বিসিএ অ্যাওয়ার্ডস যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশি কারি শিল্পে অত্যন্ত সম্মানের অ্যাওয়ার্ড। যা সত্যিকার অর্থেই কারি শিল্পের বিবাদমান সমস্যা সমাধানের পাশাপাশি এই শিল্পের সম্ভাবনা ও আলোকিত দিকগুলো মূল ধারায় তুলে ধরছে।

বিসিএ সেক্রেটারি মিঠু চৌধুরী আরো বলেন, বিসিএ অ্যাওয়ার্ডস বাংলাদেশি কারি শিল্পকে শুধু আলোকিত করছে না, এটি ব্রিটেনের গোটা কারি ইন্ডাস্ট্রির উন্নয়নে কাজ করছে বলে মনে করেন তিনি।