ঢাকা, সোমবার, ১২ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ২৯শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

যে কারণে সেলাইবিহীন সাদা কাপড় পরতেন আবুল মকসুদ!

মানবতাবাদকে তিনি জীবনের আদর্শ হিসেবে গ্রহণ করেছিলেন। তিনি বাহুল্য বর্জন করে সেলাইবিহীন সাদা পোশাক পরতেন মহাত্মা গান্ধীর মতো। নির্মোহভাবে নিরপেক্ষ দৃষ্টিকোণ থেকে বিশ্লেষণ করতেন সমসাময়িক রাজনীতি ও সমাজের নানা অসংগতি। যেকোনো অন্যায়, অবিচারের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়ে রাজপথে নেমে আসতেন। তিনি সাংবাদিক-কলামিস্ট, গবেষক ও নাগরিক আন্দোলনের নেতা সৈয়দ আবুল মকসুদ।

মৃত্যুর আগ পর্যন্ত টানা ১৮ বছর সেলাইবিহীন সাদা কাপড় পরেছেন আবুল মকসুদ। প্রতিবাদের পোশাক হিসেবে বিভিন্ন অনুষ্ঠান ও আন্দোলনে তিনি এই সাদা কাপড় পরতেন। ভিন্নধর্মী এই পোশাকেই যেতেন সবখানে। কিন্তু কেন তিনি বেছে নিয়েছিলেন এই পোশাক? অনেকের মনে সেই কৌতূহল রয়েছে।

সৈয়দ আবুল মকসুদ সেলাইবিহীন সাদা চাদর কেন পরতেন তা কথাসাহিত্যিক আনিসুল হক তার একটি লেখায় জানিয়েছেন। ২০১৬ সালে দৈনিক প্রথম আলোতে আনিসুল হকের ‘লুঙ্গি’ শিরোনামে লেখায় রয়েছে সেই বর্ণনা। ২০০৩ সালে ইরাকে মার্কিন হামলার প্রতিবাদে পশ্চিমা পোশাক ত্যাগ করে ভিন্নধর্মী এই পোশাক পরা ধরেছিলেন সৈয়দ আবুল মকসুদ। জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত সেই পোশাকই ছিল তার নিত্যসঙ্গী।

আনিসুল হক লিখেছেন- ‘ইরাকে মার্কিন হামলার প্রতিবাদে বাংলাদেশের অগ্রগণ্য সাংবাদিক ও লেখক সৈয়দ আবুল মকসুদ সেলাই করা কাপড় বর্জন করেন। এটা এই অঞ্চলের মানুষের ঐতিহ্য—বিদেশিরা এই অঞ্চলে আসার আগে আমরা সেলাইবিহীন কাপড় পরতাম। ধুতি আর শাড়ি। ব্লাউজ ছিল না। লুঙ্গিতেও সেলাই ছিল না। ঠাকুরবাড়ি শাড়ির সঙ্গে পরার জন্য ব্লাউজ, পেটিকোট ইত্যাদির প্রচলন করে। ইরাকে গণবিধ্বংসী অস্ত্র আছে এই মিথ্যা অজুহাতে মার্কিনরা হামলা চালায় এবং পুরো পৃথিবীটাকে অশান্ত করে তোলে, সৃষ্টি করে লাখ লাখ মানুষের মৃত্যু ও কোটি মানুষের বেদনার কারণ। তারই প্রতিবাদে সৈয়দ আবুল মকসুদ দুই খণ্ড সেলাই-ছাড়া সাদা চাদর পরা শুরু করেন। তিনি এখনো সেই ব্রত পালন করে চলেছেন।’

সৈয়দ আবুল মকসুদ দেশের রাজনীতি, সমাজ, সাহিত্য ও সংস্কৃতিসহ সমসাময়িক বিষয় নিয়ে সংবাদপত্রে কলাম লিখে ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেন। তাঁর রচিত বইয়ের সংখ্যা চল্লিশের বেশি। বাংলা সাহিত্যে সামগ্রিক অবদানের জন্য তিনি ১৯৯৫ সালে বাংলা একাডেমি পুরস্কার লাভ করেন।

সৈয়দ আবুল মকসুদের জন্ম ১৯৪৬ সালের ২৩ অক্টোবর মানিকগঞ্জের শিবালয় উপজেলার এলাচিপুর গ্রামে। তাঁর কর্মজীবন শুরু হয় ১৯৬৪ সালে এম আনিসুজ্জামান সম্পাদিত সাপ্তাহিক নবযুগ পত্রিকায় সাংবাদিকতার মাধ্যমে। এটি ছিল পাকিস্তান সোশ্যালিস্ট পার্টির মুখপত্র। পরে ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির পৃষ্ঠপোষকতায় প্রকাশিত সাপ্তাহিক ‘জনতা’য় কাজ করেন কিছুদিন। পরে ১৯৭১ সালে বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থায় যোগ দেন। ২০০৮ সালের ২ মার্চ সংবাদ সংস্থার সম্পাদকীয় বিভাগে থাকা অবস্থায় চাকরি ছেড়ে দেন তিনি। এর পর থেকে তিনি বিভিন্ন দৈনিক পত্রিকায় নিয়মিত কলাম লিখতেন। তিনি সমাজ, রাজনীতি, সাহিত্য-সংস্কৃতি নিয়ে কলাম লিখতেন।

সৈয়দ আবুল মকসুদ সাহিত্যিক হিসেবেও খ্যাতিমান ছিলেন। কবিতার পাশাপাশি তাঁর গুরুত্বপূর্ণ গবেষণামূলক প্রবন্ধগ্রন্থ রয়েছে। তিনি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, বুদ্ধদেব বসু, সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ, মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধী, মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী প্রমুখ প্রখ্যাত সাহিত্যিক ও রাজনীতিবিদের জীবন ও কর্ম নিয়ে গবেষণা করেছেন। তাঁর বইয়ের মধ্যে রয়েছে—প্রবন্ধগ্রন্থ : যুদ্ধ ও মানুষের মূর্খতা, গান্ধী, নেহেরু ও নোয়াখালী, ঢাকার বুদ্ধদেব বসু, রবীন্দ্রনাথের ধর্মতত্ত্ব ও দর্শন, প্রতীচ্য প্রতিভা, কাজী ইমদাদুল হক রচনাবলী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও বাংলাদেশে উচ্চশিক্ষা, অরণ্য বেতার, বাঙালি জাতি বাঙালি মুসলমান ও বাঙালি জাতীয়তাবাদ, রাজনীতি ও ধর্মীয় রাজনীতি, রবীন্দ্র রাজনীতি, নির্বাচিত প্রবন্ধ। জীবনীগ্রন্থ : মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানীর জীবন-কর্মকাণ্ড-রাজনীতি ও দর্শন, সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহর জীবন ও সাহিত্য, ভাসানী কাহিনী, স্মৃতিতে সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ, গান্ধী মিশন ডায়েরি, পূর্ববঙ্গে রবীন্দ্রনাথ, বিশ্বের শ্রেষ্ঠ দশ দার্শনিক, পথিকৃৎ নারীবাদী খায়রুন্নেসা খাতুন, মোতাহের হোসেন চৌধুরী জীবন ও সাহিত্য, হরিশচন্দ্র মিত্র। কাব্যগ্রন্থ : বিকেলবেলা, দারা শিকোহ ও অন্যান্য কবিতা ও সৈয়দ আবুল মকসুদের কবিতা।

গান্ধীবাদী হিসেবে পরিচিত দেশের খ্যাতিমান এই লেখক হঠাৎ করেই চিরতরে চলে গেলেন। তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৪ বছর। মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যা সাতটার কিছু সময় পর রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।