ঢাকা, শনিবার, ১লা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

গ্রামীণ ব্যাংকের কর্মীদের উপর মে দিবসের বিরুপপ্রতিফলন।

গ্রামীণ ব্যাংক একটি কর্মী নির্ভর প্রতিষ্ঠান। যেখানে অসংখ্য কর্মীর নিরলস পরিশ্রমের সুবাধে গ্রামীণ ব্যাংক প্রতিষ্ঠিত হয়েছে প্রত্যন্ত গ্রামের অতি দরিদ্র মানুষদের কল্যানের জন্য। যার ফলে এসব কর্মীদের মধ্যে মে দিবসের সুফলের সুবাস ছড়াবে – যা সবারই কাম্য।কিন্তু গ্রামীণ ব্যাংকে কর্মীদের ক্ষেত্রে তার বিপরীত্য লক্ষ্য করা যায়।গ্রামীণ ব্যাংকে কর্ম জীবনে যেমন মে দিবসের কোন সুফল পাওয়ার সুযোগ নেই- তেমনি অবসরের পরও মে দিবসের উল্টো হাওয়া গ্রামীণ ব্যাংকের অবসরপ্রাপ্ত কর্মীদের ভোগাচ্ছে।

গ্রামীণ ব্যাংকে বর্তমানে কর্মরত কর্মীগন এবং প্রতিষ্ঠাকারি কর্মীগন- যারা বর্তমানে অবসরে আছে তারা কেহই মে দিবসের কোন সুবাতাস গায়ে লাগাতে পারে নাই। যারা ধারাবাহিকতায় গ্রামীণ ব্যাংকের অবসরপ্রাপ্ত কর্মীদের সরকারি প্রজ্ঞাপন অনুসারে ভাতাদি প্রদানে গ্রামীণ ব্যাংক বরাবরই অনিহা প্রকাশ করে আসছে।

কর্মীর কর্মকাল ও অবসর জীবনে গ্রামীণ ব্যাংক পাশে থাকবে তারই আশায় সকল কর্মী তার জীবন-যৌবন উৎসর্গ করে গ্রামীণ ব্যাংকে সেবা প্রদান করে আসছে। আজ মে দিবস 2021 এ এসে গ্রামীণ ব্যাংকের কর্মীদের মে দিবসের সুফল পাওয়ার বিষয়টি আরও হাতাশার দিকে ঠেলে দিচ্ছে। যা গ্রামীণ ব্যাংকের কর্তৃপক্ষ কখনও বিবেচনায় আনে নাই এখনও আনছে না। যার ফলে কর্মরত ও অবসরপ্রাপ্ত সকল কর্মী তাদের কর্মকালকে ও অবসর জীবনকে মে দিবসের সুফল বাতাস লাগাতে চায়। কিন্তু হায় দুর্ভাগ্য! শুরু থেকে আজ পর্যন্ত যারা গ্রামীণ ব্যাংক পরিচালনায় ছিলেন এবং বর্তমানে আছেন তারা মে দিবসের সুফল গ্রামীণ ব্যাংকের কর্মীদের মধ্যে সম্প্রসারিত হতে বাধা হয়ে অবস্থান করে আসছে।

এরই ধারাবাহিকতায় আজ গ্রামীণ ব্যাংক প্রতিষ্ঠাকারি 14 হাজার অবসরপ্রাপ্ত কর্মী তাদের ন্যায্য পাওনা বোনাস, চিকিৎসা ভাতা ও পুন:পেনশনের জন্য মাঠে-ঘাটে বৃদ্ধ বয়সে আন্দোলন করে আসছে। প্রায় চার বছর যাবত অবসরপ্রাপ্ত বয়ো-বৃদ্ধ কর্মীগন মাঠে-ঘাটে দাবি আদায়ের জন্য অবস্থান করছে। কিন্তু গ্রামীণ ব্যাংকের কোন কর্তৃপক্ষ বা দেশের সংশ্লিষ্ট কোন মহলই অবসরকারিদের দাবির বিষয়টি কর্নপাত করছে না। বিষয়টি সত্যি অবসরকারিদেরকে ব্যথিত করে তুলেছে।

মে দিবস 2021 এর উদযাপন উপলক্ষে গ্রামীণ ব্যাংকের 14 হাজার অবসরপ্রাপ্ত কর্মী তাদের ন্যায্য পাওনা বোনাস, চিকিৎসা ভাতা ও পুন:পেনশন বাস্তবায়নের জন্য গ্রামীণ ব্যাংকের ম্যানেজমন্ট তথা বোর্ডকে আবারও অনুরোধ করছে। পাশাপাশি এসংক্রান্ত বিষয়ে দেশের সংশ্লিষ্টগনকে গ্রামীণ ব্যাংকের 14 হাজার অবসরপ্রাপ্ত কর্মীর পাওনা বোনাস, চিকিৎসা ভাতা ও পুন:পেনশন পরিশোধে গ্রহনযোগ্য পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য -14 হাজার অবসরপ্রাপ্ত কর্মী অনুরোধ করছে। জয় হোক মেহনতী মানুষের- মে দিবসে গ্রামীণ ব্যাংকের 14 হাজার অবসরপ্রাপ্ত কর্মীদের এই কামনা।