ঢাকা, সোমবার, ১২ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ২৯শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

নাশকতায় জড়িতদের কাউকে ছাড় দেবো না: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

সহিংসতা রোধে সরকার কঠোর অবস্থানে যাবে বলে জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তিনি বলেন, ‘২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসে বায়তুল মোকাররমসহ বিভিন্ন স্থানে নাশকতার ঘটনায় জড়িতদের কাউকেই ছাড় দেওয়া হবে না।’ মঙ্গলবার (৬ এপ্রিল) সচিবালয়ে আয়োজিত এক বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আইনশৃঙ্খলা রক্ষার জন্যই আমরা মিটিং করেছি। আমরা দেখেছি বিনা অজুহাতে সহিংসতায় নিরীহ লোক প্রাণ হারিয়েছেন। যারা প্রাণ হারিয়েছেন তাদের মধ্যে যাদের পরিচয় দেখছি ব্রাহ্মণবাড়িয়াসহ অন্যান্য জায়গায়, তারা মাদ্রাসাছাত্রের চেয়ে বহিরাগতই বেশি ছিল, সাধারণ মানুষ বেশি ছিল। আমরা কারও প্রাণহানি ঘটুক, সেটাও চাই না। আমরা আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় সিদ্ধান্ত নিয়েছি, কঠোর অবস্থানে যাবো। প্রয়োজনে জেলা পর্যায়ে নির্দেশনা দেওয়া হচ্ছে জেলা পর্যায়ের ম্যাজিস্ট্রেট, পুলিশ সুপারসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বসে যেখানে যা প্রয়োজন, তারা সেই ব্যবস্থা করবে।’

আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, ‘আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, যেখানেই নাশকতা হবে, সেখানে  কাউকে ছাড় দেবো না। যারা নাশকতা করবেন এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে যারা চিহ্নিত হবেন, দোষী সাব্যস্ত হবেন, তাদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। যেন  তারা এই ঘটনা সংগঠিত করার প্রয়াস না পান। দীর্ঘক্ষণের মিটিংয়ে এটাই ছিল আমাদের সিদ্ধান্ত।’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা আরেকটি জিনিস লক্ষ করেছি, সম্প্রতি উপজেলা ভূমি অফিস, তহসিল অফিসে অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে। এখানে অগ্নিসংযোগ করলে ক্ষতিগ্রস্ত হবে সেই এলাকার জনগণ। সেখানে জমির মালিকানা, জরিপ ও নামজারির নিয়ন্ত্রণ করে ভূমি অফিসগুলো। তার রেকর্ডপত্র যদি পুড়ে যায় তাহলে ভুক্তভোগী হবে সেই এলাকার জনগণ। যেটা আমরা দেখেছিলাম স্বাধীনতাযুদ্ধে অনেক ভূমি অফিস পুড়ে গিয়েছিল, ফলে অনেক বছর লেগেছিল সেটা একটি সিস্টেমে আনার জন্য। সেটি আমরা হাটহাজারী, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, সালথায় উপজেলায় বিনা কারণে, বিনা উসকানিতে ঘটনাগুলো ঘটিয়েছে। আমি সংশ্লিষ্ট এলাকার জনগণকেও আহ্বান করবো, তারা যেন এগুলোর প্রতিবাদ করেন।’
হেফাজত নেতা মামুনুল হক  সম্পর্কে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘পুলিশ হেফাজতে নিলে তাকে বাইরে দেখা যাচ্ছে কিভাবে? তিনি তো বাইরে দিব্যি ঘুরছেন, তার অত্মীয়-স্বজন ও বন্ধুবান্ধবসহ সবাইকে নিয়ে। তিনি অপরাধ করলে মামলা তো হবেই, মামলা মামলার গতিতে চলবে। সেখানে কারও হাত নেই। যেই অপরাধ করবেন, তার বিরুদ্ধে মামলা হবেই। অপরাধ করলে আইন অনুযায়ী আদালত তার বিচার করবেন।’

কওমি মাদ্রাসাসহ যত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান রয়েছে, মহামারির কারণে সবই সরকার বন্ধ ঘোষণা করেছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘আমি অনুরোধ করবো, সবাই যেন সরকারের এই নির্দেশনা মেনে আমাদের সহযোগিতা করেন। সব ধরনের ধর্মীয় অনুষ্ঠান, সামাজিক অনুষ্ঠান, বিবাহ, জন্মদিনের উৎসবও বন্ধ করা হয়েছে। এই কয়েকটি দিন কোনো ধর্মীয় অনুষ্ঠান বা কোনো জায়গায় যেন লোক সমাগম না হয়, তার দিকে লক্ষ্য রাখার জন্য সবাইকে বলবো।’