ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৯শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি কেন বাড়ে, এড়াতে আমাদের করণীয় কী

শীত এলে সর্দি-কাশি,জ্বরসহ নানা রোগের ঝুঁকি অনেকাংশে বেড়ে যায়। সবচেয়ে বিপদজনক হলো হার্ট অ্যাটাক। একাধিক গবেষণায় ও বিজ্ঞানভিত্তিক পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে যে, শীত আসলে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকিও বেড়ে যায়। তাই এসময়টায় হার্টের স্বাস্থ্যের যত্ন নেওয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

গবেষণায় ও পর্যবেক্ষণে দেখে গেছে, শীতকালে দিনের একটি বিশেষ সময়ের মধ্যে হার্ট অ্যাটাকের ঘটনা সবচেয়ে বেশি হয়। এ বিষয়ক বিস্তারিত আরও তথ্য…

হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি কাদের মধ্যে বেশি?

ইউরোপিয়ান জার্নাল অব এপিডেমিওলজিতে প্রকাশিত এক গবেষণায় দেখা গেছে যে, যাদের ওজন বেশি বা স্থূলতার সমস্যায় ভুগছেন বা যারা উচ্চ রক্তচাপের সমস্যায় দীর্ঘ দিন ভুগছেন তাদের হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি বেশি।

রক্ত জমাট বেঁধে হার্ট অ্যাটাক

শীতের মৌসুমে রক্তনালী সরু হয়ে যাওয়ার কারণে রক্তচাপ বাড়তে থাকে। রক্তচাপ বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে হার্ট অ্যাটাকের ঘটনা বাড়তে শুরু করে দেয়। বিশেষজ্ঞদের মতে- শীতকালে মানুষের শরীরে রক্ত জমাট বাঁধতে শুরু করে ,যার কারণে মানুষের মধ্যে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকিও বেড়ে যায়।

শীতের সকালে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি বেশি

বেশিরভাগ সময়ই ঠান্ডা আবহাওয়ায় সকালে মানুষ হার্ট অ্যাটাক করে। শীতকালে সকালে তাপমাত্রা কমে যাওয়ায় শরীরের তাপমাত্রাও অনেকের কমে যায়। এ কারণে শরীরের তাপমাত্রার সমতা ফেরাতে গিয়ে রক্তচাপ বাড়তে পারে, যা হার্ট অ্যাটাকের কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি এড়াতে যা যা করবেন

১) শীতকালে সকাল ৬টা থেকে ৭টার মধ্যে হাঁটতে যাওয়া নিষেধ। সকাল ৯টার পর থেকে হাঁটতে বের হন।
২) লবণ কম খান।
৩) রোদে সর্বাধিক সময় কাটান।
৪) প্রতিদিন সামান্য শরীরচর্চা করুন।
৫) খাদ্যের ওপর নিয়ন্ত্রণ রাখার চেষ্টা করুন এবং ভাজা, মিষ্টি খাবার এড়িয়ে চলুন।
৬) ঠান্ডা কাপড়ের বিশেষ যত্ন নিতে হবে। শীতকালে নিজেকে ঢেকে রাখা অতান্ত জরুরি।
৭) নিয়মিত রক্তচাপ পরীক্ষা করা প্রয়োজন। বিশেষ করে যাদের উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা বেশি থাকে।