ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২১শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ৭ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

কে মিথ্যাবাদী- পুলিশ নাকি র‍্যাব? প্রশ্ন নুরের

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ঢাকসু) সাবেক ভিপি নুরুল হক নুর বলেছেন, ‘র‍্যাবের অভিযানে হাজী সেলিমের পুত্র ইরফান সেলিমকে আটক করার পরে আইনবহির্ভূত বিদেশি মদ, অস্ত্র ও অকিটকিসহ অনেক অবৈধ দ্রব্য সংরক্ষণের দায়ে দুটি মামলার একটিতে ৬ মাস এবং আরেকটি মামলায় ১ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। এই ঘটনার আলোচনা শেষ হওয়ার পরেই পুলিশ তাকে মামলা থেকে অব্যাহতি দিয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘এই প্রসঙ্গে পুলিশ বলছে যে, সেরকম কোনও অভিযোগ পাওয়া যায়নি। এখন কে মিথ্যাবাদী- পুলিশ নাকি র‍্যাব? কে প্রতারক- পুলিশ নাকি র‍্যাব? এখানে র‍্যাব যদি প্রতারণা ও নাটক করে থাকে; তাহলে এ পর্যন্ত র‍্যাব কত প্রতারণা ও নাটক করেছে? আর যদি ধরে নেই ক্ষমতাসীন দলের প্রতারক-দস্যুদের বাঁচাতে পুলিশ এই মিথ্যা প্রতিবেদন দিয়েছে। তাহলে পুলিশ গত ১২ বছরে এমন কত প্রতিবেদন দিয়েছে পুলিশ?’

বৃহস্পতিবার (০৭ জানুয়ারি) রাজধানীর তোপখানায় শিশুকল্যাণ মিলনায়তনে লেবার পা‌র্টির উদ্যোগে ফেলানী দিবস উপল‌ক্ষে এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

নুর বলেন, ‘বিরোধী দলের নেতাকর্মীরা দীর্ঘদিন যাবত ভোট দিতে না পারার অভিযোগ করলেও এখন সরকারি দলের নেতারা এই অভিযোগ করছেন।’

তিনি বলেন, ‘চুনোপুঁটি কোনও নেতা নয়, সরকারি দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের ভাই উৎকণ্ঠায় রয়েছেন। ডিসির সাথে মিটিং ছিল, সেখান তাকে কথা বলতে দেয়নি। তিনি খোলা মাঠে নেতাকর্মীদের বলেছেন, ‘এখন ভোট হয় না। শেখ হাসিনা মানুষের ভাতের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে পারলেও ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে পারেননি‘। এটা ওবায়দুল কাদেরের ভাইয়ের কথা। ওবায়দুল কাদেরের ভাই সরকারি দলের এমন পর্যায়ে থেকেও ভোট নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন।’

ফেনীর নিজাম হাজারীর প্রসঙ্গ টেনে ওবায়দুল কাদেরর ভাই বলেছেন, ‘এই ধরনের দুষ্ট লোক আওয়ামী লীগকে খেয়ে ফেলছে। আওয়ামী লীগ এখন দুষ্ট লোকের আখড়ায় পরিণত হয়েছে’।’

বিএনপির প্রতি ইঙ্গিত করে ডাকসুর সাবেক এ ভিপি বলেন, ‘দেশে বড়ো বড়ো রাজনৈতিক দলের নেতারা বলছেন, ৩০ ডিসেম্বর ছিল ভোট ডাকাতির নির্বাচন, ভোটাধিকার হরণের নির্বাচন। তাহলে আপনারা কেন সেদিন রাজপথে নামেননি? আমরা ছোট পরিসরে হলেও আন্দোলন করেছি; কিন্তু আপনারা এতো বড়ো দল হয়েও কেন শুধু প্রেসক্লাবে পড়ে থাকবেন? সেদিন কেন বিক্ষোভ মিছিল করেননি?’

তিনি আরও বলেন, ‘বর্তমান সরকার আন্তর্জাতিকভাবে বলেন বা দেশীয়ভাবে বলেন, তারা নানা দিক থেকেই চাপে রয়েছে। তাদের পায়ের নিচ থেকে মাটি সরে গেছে। প্রকাশ্যে বলছি, আমরা এই সরকারের পতন চাই। এই ফ্যাসিবাদী সরকারের পতনের জন্য যা করা দরকার আমরা তাই করবো। সুতরাং এটা কোনও ষড়যন্ত্র নয়। তথাকথিত সুবিধাবাদীরা বলছেন, সরকার হটানোর নীলনকশা চলছে। নীলনকশা কেন, এটাতো সাজানো হচ্ছে। এই অবৈধ ভোটারবিহীন সরকারকে হটাতে সারা দেশের জনগণকে নিয়ে যার যার দল থেকে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন করতে হবে।’

বাংলাদেশ লেবার পার্টির চেয়ারম্যান ডা. মোস্তাফিজুর রহমান ইরানের সভাপতিত্বে এসময় আরও বক্তব্য রাখেন- গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, এনডিএম’র চেয়ারম্যান ববি হাজ্জাজ ও গণস্বাস্থ্যের মিডিয়া উপদেষ্টা জাহাঙ্গীর আলম মিন্টু ও কৃষকদ‌লের আহ্বায়ক ক‌মি‌টির সদস‌্য লায়ন মিয়া মো. আনোয়ার প্রমুখ।