ঢাকা, শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ভারতে ধর্মীয় অনুষ্ঠানে পদদলনের যত ঘটনা

ভারতের উত্তরাঞ্চলীয় রাজ্য উত্তর প্রদেশে স্বঘোষিত এক ধর্মগুরুর আয়োজন করা সৎসঙ্গ নামের এক হিন্দু ধর্মীয় অনুষ্ঠানে পদদলিত হয়ে অন্তত ১১৬ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। এছাড়া এই ঘটনায় আরও কয়েক ডজন মানুষ আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। মঙ্গলবার উত্তর প্রদেশের হাথরাসে মর্মান্তিক এই দুর্ঘটনা ঘটেছে; যা গত কয়েক বছরের মধ্যে অন্যতম বৃহৎ প্রাণহানির ঘটনা বলে দেশটির কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

দেশটির রাজধানী নয়াদিল্লি থেকে প্রায় ২০০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বে হাথরাস জেলার একটি গ্রামে পদদলনের ওই ঘটনা ঘটেছে। সেখানকার কর্তৃপক্ষ বলেছে, ভোলে বাবা ওরফে নারায়ণ সাকার হরি নামের স্বঘোষিত ধর্মগুরুর আহ্বানে হাথরাসের এক উন্মুক্ত মাঠে সমবেত হয়েছিলেন হাজার হাজার মানুষ। সেখানে ছোট্ট জায়গায় তাঁবু টানিয়ে ভক্তদের বসার ব্যবস্থা করায় দমবন্ধকর পরিস্থিতি তৈরি হয়। ফলে সমাবেশের শেষের দিকে লোকজন ছোটাছুটি করে বের হওয়ার সময় ওই দুর্ঘটনা ঘটেছে।

গত কয়েক বছরে ভারতে ঘটে যাওয়া কয়েকটি বড় ধরনের পদদলনের ঘটনার তালিকা দেখে নেওয়া যাক; যার বেশিরভাগই ধর্মীয় উৎসব বা সমাবেশে ঘটেছে…

• জানুয়ারি ২০০৫ : দেশটির পশ্চিমাঞ্চলীয় রাজ্য মহারাষ্ট্রের ওয়াই শহরের মান্ধারদেবী মন্দিরে পদদলিত হয়ে ২৬৫ জনেরও বেশি হিন্দু ভক্তের প্রাণহানি ঘটে। এতে আহত হন আরও শতাধিক। মন্দিরের দিকে যাওয়ার পিচ্ছিল সিঁড়িতে পদদলনের ঘটনা ঘটে বলে সেই সময় দেশটির সংবাদমাধ্যম জানায়।

• আগস্ট ২০০৮ : ভারতের উত্তরের রাজ্য হিমাচল প্রদেশের পাহাড়ের চূড়ায় নয়না দেবী মন্দিরে পদদলনে প্রায় ১৪৫ জন হিন্দু তীর্থযাত্রী মারা যান। ভূমিধসের গুজব ছড়িয়ে পড়ায় ছোটাছুটি করে মন্দির থেকে বেরিয়ে আসার সময় এই দুর্ঘটনা ঘটে।

• সেপ্টেম্বর ২০০৮ : দেশটির উত্তরাঞ্চলীয় মরুভূমির রাজ্য রাজস্থানের চামুন্দাগর মন্দিরে নবরাত্রি উদযাপন উপলক্ষ্যে হাজার হাজার পূণ্যার্থী জড়ো হয়েছিলেন। সেই সময় পদদলনে অন্তত ২৫০ পূণ্যার্থী নিহত হন।

• মার্চ ২০১০ : ভারতের উত্তরাঞ্চলীয় রাজ্য উত্তর প্রদেশের একটি মন্দিরে বিনামূল্যে খাবার ও পোশাক বিতরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সেই সময় খাবার ও পোশাক সংগ্রহের সময় লোকজনের মাঝে হুড়োহুড়ি লেগে যায়। এতে পদদলিত হয়ে কমপক্ষে ৬৩ জন নিহত হন; যাদের অর্ধেকেরও বেশি শিশু।

• ফেব্রুয়ারি, ২০১৩ : উত্তর প্রদেশে কুম্ভ মেলার ব্যস্ততম দিনে পদদলিত হয়ে কমপক্ষে ৩৬ জন পূণ্যার্থী নিহত হন। উত্তর প্রদেশে দুই মাস ধরে চলা এই মেলায় ১০ কোটিরও বেশি মানুষের সমাগম হয়। পদদলনে নিহতদের মধ্যে অন্তত ২৭ জনই নারী ছিলেন। তাদের মধ্যে ৮ বছর বয়সী এক কন্যা শিশুও ছিল।

• নভেম্বর, ২০১৩ : ভারতের মধ্যাঞ্চলীয় রাজ্য মধ্যপ্রদেশের রতনগড় মন্দিরে নবরাত্রি উদযাপনে দেড় লাখের বেশি মানুষের সমাগম হয়। সেই সময় পদদলিত হয়ে কমপক্ষে ১১৩ জন নিহত ও আরও শতাধিক মানুষ আহত হন।

• জানুয়ারি ২০২২ : অধিকৃত জম্মু ও কাশ্মিরের বৈষ্ণ দেবী মন্দিরে পদদলিত হয়ে কমপক্ষে ১২ জন নিহত ও কয়েক ডজন পূণ্যার্থী নিহত হন। হাজার হাজার পূণ্যার্থী সংকীর্ণ ফটক দিয়ে মন্দিরে প্রবেশের চেষ্টার সময় পদদলনের ওই ঘটনা ঘটে।

সূত্র: রয়টার্স।