ঢাকা, শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সুগার নিয়ন্ত্রণ ও হার্ট ভালো রাখে গ্রীষ্মের এই ফল

গ্রীষ্ম মানেই চারিদিকে আম আর আম। পাকা আমের পাশাপাশি এটিকে কাঁচা খেতেও পছন্দ করেন অনেকে। অনেকেই আবার কাঁচা আম লবণ ও মরিচ দিয়ে মেখে খেতে পছন্দ করেন। কাঁচা আম বিভিন্ন পুষ্টি উপাদানের একটি বড় উৎস। যার মধ্যে ভিটামিন, মিনারেল, ডায়েটারি ফাইবার ও ক্যারোটিনয়েড রয়েছে। এছাড়া, গ্রীষ্মের প্রচণ্ড তাপে আম খাওয়া উচিত।

কাঁচা আমের অনেক গুণাগুন রয়েছে। আসুন সেগুলো জেনে নেওয়া যাক।

হার্টের স্বাস্থ্য নিয়ন্ত্রণ করে : আমে ম্যাগনেসিয়াম ও পটাসিয়ামের মতো পুষ্টি উপাদান রয়েছে। যা রক্ত প্রবাহ বজায় রাখতে সাহায্য করে, যা একটি সুস্থ হার্টের দিকে পরিচালিত করে। এই পুষ্টিগুলো আপনার রক্তনালীগুলিকে শিথিল করতে সাহায্য করে ও রক্তচাপ কমায়। ফলটি ম্যাঙ্গিফেরিন সমৃদ্ধ, একটি সুপার অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, যা হার্টের স্বাস্থ্যের জন্য ভালো। গবেষণা অনুসারে, কাঁচা আম আপনার রক্তের কোলেস্টেরল, ট্রাইগ্লিসারাইড ও ফ্রি ফ্যাটি অ্যাসিডের মাত্রা কমাতেও সাহায্য করে।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে : কাঁচা আম অনাক্রম্যতা-বর্ধক পুষ্টির ভালো উৎসে ভরপুর। গবেষণা অনুসারে, এক কাপ কাঁচা আম আপনার প্রতিদিনের ভিটামিন এ-এর চাহিদার ১০ শতাংশ প্রদান করে, যা একটি সুস্থ ইমিউন সিস্টেমের জন্য অপরিহার্য। এছাড়া, কাঁচা আমে রয়েছে ভিটামিন সি, যা আপনার শরীরকে আরও রোগ-প্রতিরোধী শ্বেত রক্তকণিকা তৈরি করতে সাহায্য করে, এই কোষগুলোকে কার্যকরভাবে কাজ করতে সাহায্য করে এবং আপনার ত্বকের প্রতিরক্ষা উন্নত করে।

সুগার নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে : অন্যান্য তাজা ফলের তুলনায় কাঁচা আমে প্রাকৃতিক চিনির পরিমাণ খুব বেশি থাকে না। এটি আসলে ডায়াবেটিসের মতো বিপাকীয় পরিস্থিতিতে ভুগছেন, এমন ব্যক্তিদের রক্তে সুগারের মাত্রা ভারসাম্য বজায় রাখতে বা কমিয়ে আনতে সহায়তা করে।

হজমের স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটায় : কাঁচা আমে পাওয়া পাচক এনজাইম, যা অ্যামাইলেস নামে পরিচিত, বড় খাদ্যের অণুগুলোকে ভেঙে ফেলতে সাহায্য করে, যাতে সেগুলো সহজেই শোষণ করা যায়। এগুলো জটিল কার্বোহাইড্রেটকে চিনিতে ভেঙে দেয়, যেমন গ্লুকোজ ও মল্টোজ। প্রচুর জল এবং খাদ্যতালিকাগত ফাইবারের কারণে, কাঁচা আম কোষ্ঠকাঠিন্য এবং ডায়ারিয়ার মতো হজম সংক্রান্ত সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে সাহায্য করে।