ঢাকা, শুক্রবার, ১৪ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পার্লারে সেজে মার্কেটে যান, ঝগড়া বাধিয়ে ছিনতাই করেন তিনি

রাজধানীর মিরপুর থেকে মুক্তা বেগম (৪০) নামে তালিকাভুক্ত শীর্ষ এক নারী ছিনতাইকারীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। রোববার (২৪ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় মিরপুর মডেল থানার ১০নং সেকশনের ওয়াসা ভবনের সামনে থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯-এ ফোন কল পেয়ে তাকে গ্রেপ্তার করে মিরপুর মডেল থানা পুলিশ। সোমবার (২৫ সেপ্টেম্বর) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

পুলিশ জানায়, পার্লারে সেজে অভিনব পদ্ধতিতে ছিনতাই করতে বের হন মুক্তা। তিনি মার্কেটে গিয়ে কোনো তরুণীর সঙ্গে শুরুতে ঝগড়া বাধিয়ে দেন, এরপর সুযোগ বুঝে মোবাইল ও টাকা হাতিয়ে পালিয়ে যান। গ্রেপ্তার মুক্তা তালিকাভুক্ত শীর্ষ নারী ছিনতাইকারী। তার বিরুদ্ধে নগরীর বিভিন্ন থানায় সাতটি মামলা রয়েছে। তিনি সাতবার গ্রেপ্তারও হয়েছেন।

পুলিশ আরও জানায়, মুক্তা প্রথম তার মায়ের কাছ থেকে চুরি করা শেখেন। তার মা অসুস্থ হয়ে শয্যাশায়ী হলে নিজেই দল গড়েন মুক্তা। সঙ্গে একজনকে নিয়ে পুরো ঢাকা শহরে ছিনতাই শুরু করেন। মানুষের সন্দেহ এড়াতে তিনি অভিনব এক কৌশল গ্রহণ করেন। প্রতিবার ছিনতাইয়ে বের হওয়ার আগে বিউটি পার্লারে গিয়ে সেজে আসেন তিনি। তার সাজ দেখে উচ্চবিত্ত নারী মনে হওয়ায় সহজেই তাকে কেউ সন্দেহ করেন না। আর এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে ছিনতাই করছিলেন মুক্তা।

রোববারও একই কায়দায় শাওন আফরোজ নামের এক তরুণীর মোবাইল ও ব্যাগ নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন মুক্তা। কিন্তু ভুক্তভোগী তরুণীর চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এসে মুক্তাকে আটক করে। পরে ৯৯৯-এ ফোন করলে মিরপুর মডেল থানা পুলিশের একটি দল তাকে গ্রেপ্তার করে।