ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৯শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শেষ বলের জয়ে সেমির আশা বাঁচালো অস্ট্রেলিয়া

অঘটনের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ইতোমধ্যেই দেখে ফেলেছে অনেক অঘটন। শেষটায় সেই পাতায় নাম জুড়ে দেওয়ার সুযোগ ছিল আফগানিস্তানের। কিন্তু শেষ বলের লড়াইয়ে ভাগ্যটা সঙ্গ দেয়নি রশিদ খান-গুলবাদিন নায়েবদের। তাই তো স্বাগতিকদের মাটিতে নামিয়ে এনেও জয়ের দেখা পাওয়া হলো না মোহাম্মদ নবির দলের।

শুক্রবার অ্যাডিলেড ওভালের ম্যাচে আফগানিস্তানকে ৪ রানে হারিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। ব্যাটিং ও ফিল্ডিংয়ে নজরকাড়া পারফরম্যান্স করে অজিদের ম্যাচ জয়ের নায়ক গ্লেন ম্যাক্সওয়েল।

সেমির লড়াইয়ে টিকে থাকতে এ ম্যাচটা জিততেই হতো অস্ট্রেলিয়াকে। অন্যদিকে বৃষ্টির কারণে দুই ম্যাচ পরিত্যক্ত হওয়ায় আগেভাগেই বিশ্বকাপ শেষ আফগানিস্তানের। কারণ বাকি দুই ম্যাচের একটিতেও জয়ের কাছাকাছি যেতে পারেনি মোহাম্মদ নবির দল। ছন্নছাড়া বিশ্বকাপের শেষ ম্যাচে অজিদের বিপক্ষে টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন আফগানদের কাপ্তান।

ঘরের মাঠে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরু থেকেই আগ্রাসী ক্রিকেট খেলতে শুরু করে অস্ট্রেলিয়া। অধিনায়ক ফিঞ্চের বদলি হিসেবে নামা ক্যামেরন গ্রিণ অবশ্য তেমন কিছুই করতে পারেননি। আউট হয়েছেন ৩ রান করে।

দলে সুযোগ পেয়ে স্মিথও ছিলেন অনুজ্জ্বল। ৪ বলে ৪ রান করে ফিরেছেন নাভিনের বলে এলবিডব্লিউ হয়ে। ইনিংসের মাঝের দিকে রানের গতি বাড়ান মিচেল মার্শ। ৩০ বলে তার ৪৫ রানের ইনিংসটি বড় সংগ্রহের ভিত গড়ে দিয়েছে অজিদের।

মার্শের বিদায়ের পর দায়িত্ব নিয়ে খেলেছেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল ও মার্কাস স্টোয়িনিস। স্টোয়িনিস ২৫ রানে ফিরলেও শেষ পর্যন্ত ব্যাটিং করেছেন ম্যাক্সি। ৩২ বলে তার ৫৪ রানের অপরাজিত ইনিংসে ১৬৮ রান করে অস্ট্রেলিয়া।

বড় লক্ষ্যতাড়ায় ব্যাটিংয়ে নেমে শুরু থেকেই প্রতিরোধ দেখিয়েছে আফগানিস্তান। দলীয় ১৫ রানে ওপেনার উসমান গনি ফিরলেও লড়াই জমিয়ে রাখেন রহমানউল্লাহ গুবরাজ। ৩০ রান করা গুবরাজকে রিচার্ডসন ফেরাতলেও ঠেকাতে পারেনিনি আফগানদের।

৪ নম্বরে ব্যাটিংয়ে নেমে ভালো শুরু পেয়ে যান গুলবাদিন নায়েবও। তৃতীয় উইকেটে ইব্রাহিম জাদরানকে নিয়ে গড়েন ৫৯ রানের জুটি। ম্যাচ যখন পুরোপুরি আফগানদের নিয়ন্ত্রণে তখনই ভাগ্যের ফেরে আটকে যায় নবির দল। মিডউইকেট থেকে ম্যাক্সওয়েলের করা থ্রো স্ট্যাম্পে লাগলে ফেরেন গুলবাদিন।

পরের বলেই সাজঘরে ফেরেন আরেক সেট ব্যাটার ইব্রাহিম। একই ওভারে জাম্পা ফেরান নাজিবুল্লাহ জাদরানকেও। শেষদিকে রশিদ খানের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে কিছুটা জয়ের সম্ভাবনা জাগলেও হার নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয় আফগানদের।