ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৯শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বঙ্গবন্ধুর মতো নিঃস্বার্থভাবে মানুষের পাশে দাঁড়াতে চাই : মাহিয়া মাহি

ঢালিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী মাহিয়া মাহি। সিনেমা পর্দায় যার সরব পদচারণা— সম্প্রতি যুক্ত হয়েছেন রাজনীতিতে। কয়েকমাস পরই হবেন মা। এখনও অল্পস্বল্প করছেন সিনেমার শুটিং। সব মিলিয়ে ত্রিমুখী দায়িত্বের ভার কীভাবে সামলাচ্ছেন তা-ই ওঠে এলো তার সাম্প্রতিক একটি সাক্ষাৎকারে।

নিজের বর্তমান শারীরিক পরিস্থিতি জানিয়ে মাহি বলেন, ‘এখনও স্বাভাবিক আছি। আর কিছুদিন পর পুরোপুরি বিশ্রামে যেতে হবে। তাই যে ছবিগুলোর শুটিং বাকি ছিল সেগুলোর শুটিং দ্রুত শেষ করতে হচ্ছে। বেশ সাবধানতা অবলম্বন করেই শুটিং করছি।’

অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার পর যত্নআত্তি যেমন বেড়েছে, তেমনি বেড়েছে মেজাজের রং পাল্টানোও। মাহির কথায়, ‘সবাই বাড়তি কেয়ার নিচ্ছে। চোখে চোখে রাখছে। সব কিছুই আলাদা লাগছে। তবে আমি আমার মতোই আছি। ঘুরছি, কাজ করছি, সবার সঙ্গে আনন্দ করছি। নিজের মানসিক পরিবর্তনও লক্ষ করছি। হুটহাট মুড সুইয়িং করছে। এই রেগে যাচ্ছি, এই তো হাশিখুশি থাকছি।’

একে তো প্রথমবার মা হচ্ছেন তারওপর রাজনীতির নতুন দায়িত্ব। বিষয়টাকে আলাদা বোঝা হিসেবে দেখছেন না মাহি। তার ভাষায়, “বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ বইটা পড়ি। তাকে নিয়ে বইগুলো পড়ার পরই আমার বিশ্বাসের জায়গা অনেক দৃঢ় হয়। একটা মানুষ সব কিছুকে ইগনোর করে দেশের জন্য কতটা ত্যাগ স্বীকার করতে পারেন! এই উপলব্ধি থেকেই তার প্রতি আরও দুর্বল হয়ে পড়ি। এছাড়াও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্পর্কেও জানি। নিজ দলের বাইরে অন্য দলের তথা দেশের সব মানুষের পাশে তার দাঁড়ানো, আমাকে মুগ্ধ করে।”

রাজনীতিতে পা রাখলেও আপাতত নির্বাচন করার কোনো পরিকল্পনা নেই মাহির। ‘সবে তো শুরু— এখানে অনেক জানাশোনার ব্যাপার আছে। ভালোভাবে রাজনীতির পাঠোদ্ধার করে একটু বয়স বাড়লে তারপর। তবে আমি মনেপ্রাণে বঙ্গবন্ধুকে ধারণ করে রাজনীতিতে এসেছি। তার মতো করে নিঃস্বার্থভাবে মানুষের পাশে দাঁড়াতে চাই’— জানালেন মাহি।