ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৯শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

অব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশ বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন : জিএম কাদের

অব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশ বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন বলে দাবি করেছেন জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান ও বিরোধীদলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ (জিএম) কাদের। তার দাবি, অব্যবস্থাপনা ও অনিয়মের দিক দিয়ে সারা বিশ্বে জরিপ করা হলে বাংলাদেশের কাছাকাছি কোনো দেশ নেই।

রোববার (২৩ অক্টোবর) দুপুরে জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের বনানী কার্যালয় উপজেলা দিবস উপলক্ষে জাতীয় পার্টি আয়োজিত আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন তিনি।

খাদ্যের অভাবে কখনো দুর্ভিক্ষ হয় না বলে উল্লেখ করে জিএম কাদের বলেন, দেশে একনায়কতন্ত্র চললে সেদেশে দুর্ভিক্ষ হবেই। গণতন্ত্র না থাকলে বৈষম্য সৃষ্টি হয়। বৈষম্য থেকেই দেখা দেয় দুর্ভিক্ষ।

জাতিসংঘের খাদ্যবিষয়ক একটি প্রতিষ্ঠানের উদ্বৃতি দিয় জাপা চেয়ারম্যান বলেন, বিশ্বের ৪৫টি দেশে খাদ্য সংকট হবে। তারমধ্যে এশিয়ার নয়টি আর দক্ষিণ এশিয়ার তিনটি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের নাম আছে।

দেশে গণতন্ত্র নেই বলে উল্লেখ করে জিএম কাদের বলেন, গণতন্ত্রের নামে একনায়কতন্ত্র চলছে। তাই দুর্ভিক্ষ ঠেকাতেও দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত করতে হবে। গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হলেই সুশাসন এবং সামাজিক ন্যায় বিচার নিশ্চিত হবে।

দিন দিন বাংলাদেশের রিজার্ভ কমে যাচ্ছে বলে উল্লেখ করে জিএম কাদের বলেন, আবার আগামী বছর থেকে সুদ ও আসলসহ ২২ বিলিয়ন ডলার শোধ করতে হবে। তখন মারাত্মক অর্থনৈতিক সংকটে পড়তে পারে দেশ। যখন মেগা প্রকল্পের নামে হাজার হাজার কোটি টাকা ব্যয় করা হচ্ছে, তখন শুধু সুইস ব্যাংকেই পাচার হয়েছে ৪ লাখ কোটি টাকা। মেগা প্রকল্পের ফলে একটি শ্রেণির লোকের দেশে টাকা রাখার জায়গা নেই। তারা বিদেশে হাজার হাজার কোটি টাকা পাচার করছে। আর বেশির ভাগ মানুষই খাবার কিনতে পারে না, অর্থের অভাবে শিশুর চিকিৎসা হচ্ছে না।

ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের কারণে বাংলাদেশের অর্থনীতি দুর্বল হয়নি বলে মনে করেন সাবেক এই বাণিজ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, আগেই দেশের রিজার্ভ কমে গেছে। দুর্নীতি ও অব্যবস্থাপনার কারণে দেশের অর্থনীতিতে সংকট সৃষ্টি হয়েছে।

আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য রাখেন জাতীয় পার্টির মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু, কো-চেয়ারম্যান এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার, প্রেসিডিয়াম সদস্য সাহিদুর রহমান টেপা, মীর আব্দুস সবুর আসুদ, মো. রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া, আলমগীর সিকদার লোটন, রানা মো. সোহেল, মো. জহিরুল ইসলাম জহির, মোস্তফা আল মাহমুদ, আতিকুর রহমান আতিক প্রমুখ।