ঢাকা, সোমবার, ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১১ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বঙ্গবন্ধুর অনুপ্রেরণার উৎস ছিলেন বঙ্গমাতা : স্থানীয় সরকারমন্ত্রী

স্থানীয় সরকারমন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম বলেছেন, মহীয়সী নারী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের ছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সকল অনুপ্রেরণা, উৎসাহ আর উদ্দীপনার উৎস।

সোমবার (৮ আগস্ট) রাজধানীর আগারগাঁওয়ে এলজিইডি ভবনে স্থানীয় সরকার বিভাগ আয়োজিত বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের ৯২তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি একথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, বঙ্গমাতা জাতির পিতাকে সবসময় সহযোগিতা ও উৎসাহ প্রদান করেছেন বলেই বঙ্গবন্ধু নানা প্রতিকূলতা উপেক্ষা করে দায়িত্ব পালনে কখনো বিচলিত হননি। বঙ্গবন্ধুর সারা জীবনের লড়াই-সংগ্রাম ও আন্দোলনে ছায়ার মতো পাশে থেকে সাহস যুগিয়েছেন বঙ্গমাতা। যার কারণে আমরা পেয়েছি স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ।

তিনি বলেন, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে পুরো পৃথিবীতে এক ধরনের অস্থিরতা চলছে। যার ফলে জ্বালানি ও নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ছাড়াও অন্যান্য দ্রব্যের দাম বেড়েছে। এর প্রভাব আমাদের দেশেও পড়েছে। এটি সাময়িক সময়ের জন্য। এটি আমাদের মেনে নিতে হবে। এই সমস্যা চিরকাল থাকবে না। উন্নত সোনার বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে নানা প্রতিবন্ধকতা ও ষড়যন্ত্র উপেক্ষা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর পাশে থেকে সহযোগিতা করার জন্য দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানান।

মন্ত্রী আরও বলেন, দল যে কেউ করতেই পারেন। এটি তার রাজনৈতিক অধিকার। কিন্তু রাজনীতির নামে দেশে অশান্তি সৃষ্টি করবেন, দেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রাকে ব্যাহত করার ষড়যন্ত্র করবেন। এটা সহ্য করা হবে না।

মো. তাজুল ইসলাম বলেন, স্বাধীনতার পরাজিত শক্তি আল-বদর, আস-শামস ও পাকিস্তানের দোসরা বঙ্গবন্ধুর সাড়ে তিন বছর শাসনামলে দৃশ্যমান না থাকলেও ভেতরে ভেতরে তারা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত ছিল। গোলাম আযম বাংলাদেশ হিন্দু রাষ্ট্র হয়েছে বলে দেশের বাইরে অপপ্রচার চালিয়েছে।

করোনা মোকাবিলায় সরকার সফলতার স্বাক্ষর রেখেছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, করোনার সময় বিশ্বের অধিকাংশ দেশের তুলনায় বাংলাদেশের ইকোনোমিক গ্রোথ রেট অনেক ভালো ছিল। বর্তমানে সারা পৃথিবী কৃচ্ছতা সাধন করছে। আমরাও তা অনুসরণ করতে বাধ্য হচ্ছি। শ্রীলঙ্কার সাথে বাংলাদেশের তুলনা করার সুযোগ নেই। অর্থনীতির বিভিন্ন প্যারামিটার বিশ্লেষণ করলে তা স্পষ্ট হবে।

স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব মোহাম্মদ মেজবাহ্ উদ্দিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে এলজিইডির প্রধান প্রকৌশলী সেখ মোহাম্মদ মহসীন, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর প্রধান প্রকৌশলী মো. সাইফুর রহমান, জাতীয় স্থানীয় সরকার ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক সালেহ আহমদ মোজাফফর বক্তব্য রাখেন।